Breaking News
Home | সংবাদ | মির্জাপুরে কে পাচ্ছেন ধানের শীষ প্রতীক, কালাম নাকি সাইদ?

মির্জাপুরে কে পাচ্ছেন ধানের শীষ প্রতীক, কালাম নাকি সাইদ?

মোঃ রায়হান সরকার রবিন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুর আসনে কে পাচ্ছেন ধানের শীষ আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী নাকি সাইদুর রহমান সাইদ সোহরাব? এ নিয়ে ধোয়াশায় পড়েছে দলের নেতাকর্মীরা। বিএনপি থেকে দুইজনকে মনোয়নপত্র দেওয়ায় বেকায়দায় পরেছে বিএনপির হেভিওয়েট এই দুই প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা।

দলীয় প্রার্থী চুড়ান্ত না হওয়ায় তারা মাঠেও কাজ করতে পারছে না বলে জানিয়েছেন। সব মিলিয়ে জল্পনা-কল্পনা একটাই, আসলে কে পাচ্ছেন টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুর আসনের বিএনপির দলীয় ধানের শীষের টিকেট।বিএনপির একাধিক নেতাকর্মী জানায়, মির্জাপুরে নাশকতা ও গায়েবী মামলায় বিএনপির নেতাকর্মীরা আত্মগোপনে চলেও গেলেও গ্রেফতার উপেক্ষা করে দলীয় মনোয়নপত্র সংগ্রহ করেন বিএনপির ৫ নেতা। পুলিশের গায়েবী, নাশকতা পরিকল্পনাকারী মামলায় বিএনপির অধিকাংশ নেতাকর্মী আত্মগোপনে চলে যাওয়ায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী সংকটসহ নানা জটিলতায় পরেছে মির্জাপুর উপজেলা বিএনপি। প্রভাবশালী কোন নেতাকে মির্জাপুরে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

পুলিশ তাদের গ্রেফতারের জন্য বাড়ি বাড়ি তল্লাসি করছে বলে তাদের স্বজনরা অভিযোগ করেছেন। বিভিন্ন মামলায় বিএনপি ও এর সহযোগি সংগঠনের অন্তত ২০ জন নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়েছে। তারা অভিযোগ করেছেন পুলিশের মিথ্যা ও সাজানো মামলায় এখন আমরা এলাকা ছাড়া।দলীয় সুত্র জানায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলটির এখন হযবরল অবস্থা হয়ে পরেছে। দলকে চাঙ্গা ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে পুলিশের গ্রেফতার উপেক্ষা ও হুলিয়া মাথায় নিয়ে ৫ নেতা দলীয় মনোয়নপত্র সংগ্রহ করেছিলেন। তারা হলেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির শিশু বিষয়ক সম্পাদক সাবেক এমপি ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ঢাবির মহসিন হলের সাবেক জিএস মো. সাইদুর রহমা সাইদ সোহরাব, জেলা বিএনপির সদস্য মো. ফিরোজ হায়দার খান, কেন্দ্রীয় নেতা মো. সাদেক আহমেদ খান ও টাঙ্গাইল জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি শিল্পপতি একেএম আজাদ স্বাধীন।

নানা জটিলতার কারনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি ও মনোয়ন বোর্ড আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী ও সাইদুর রহমান সাইদকে দলীয় মনোয়ন দিয়ে চিঠি দিয়েছেন। এখন পর্যন্ত কাউকে চুড়ান্ত করা হয়নি।এ ব্যাপারে মির্জাপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম নয়া দি বাংলাদেশ টুডে’কে বলেন, এখনো পর্যন্ত মনোনয়ন কে পাবে এ বিষয়ে দল কোন সিন্ধান্ত দেয়নি। যাকেই দল মনোনয়ন দিবেন তার হয়েই আমরা কাজ করে যাব।মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে এম মিজানুল হক মিজান বলেন, বিএনপি ও এর সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীসহ কাউকে হয়রানী ও উদ্যেশ্য প্রনোদিত ভাবে মামলা দেওয়া হয়নি। কিছু নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে সু নিদিষ্ট অভিযোগ পাওয়ার পরই তাদের নামে মামলা দেওয়া হয়েছে।

About admin

Check Also

সংঘাত গণতন্ত্রের সংজ্ঞা হতে পারে না: মার্কিন রাষ্ট্রদূত |শীর্ষ নিউজ

শীর্ষ নিউজ, ঢাকা: নবনিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার বলেছেন, সংঘাত গণতন্ত্রের সংজ্ঞা হতে পারে না। তাই নির্বাচনি সহিংসতা চায় না যুক্তরাষ্ট্র। আমরা সংঘাতহীন নির্বাচন দেখতে চাই। মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। সেই স্বার্থে নির্বাচনি সহিংসতা এড়ানো উচিত সব পক্ষের। সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে সব পক্ষকেই নির্বাচনি সহিংসতা এড়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *