Home | জাতীয় | স্কয়ার হাসপাতালে নবজাতককে ‘হত্যার’ অভিযোগ

স্কয়ার হাসপাতালে নবজাতককে ‘হত্যার’ অভিযোগ

রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা, অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় নবজাতককে ‘হত্যা’ করা হয়েছে, এই অভিযোগ করে দায়ী চিকিৎসকের শাস্তির দাবি করেছেন তার মা-বাবা।
বুধবার আইন, বিচার ও সংবিধানবিষয়ক সংগঠন ল’রিপোর্টার্স ফোরামের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তারা এই দাবি তোলেন।
এ সময় মৃত নবজাতকের মা তাসলিমা তারানুম নোভা বলেন, ‘হাসপাতালে ভর্তি হতে না চাওয়ার পরও স্কয়ারের চিকিৎসকরা জোর করে আমাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। এরপর ভুল চিকিৎসা করে আমার নবজাতককে হত্যা করেছে। আমি এই হত্যার বিচার চাই। যাতে আর কোনো মা-বাবা এভাবে তাদের সন্তানকে হারাতে না হয়।’বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ওই মৃত নবজতাকের বাবা শাহবুদ্দিন টিপু বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার (৫ এপ্রিল) আমার স্ত্রী তাসলিমা তারানুম নোভাকে চেকআপের জন্য স্কয়ারে নিয়ে যাই। এ সময় গাইনি বিশেষজ্ঞ ডা. রেহনুমা জাহান কয়েকটি চেকআপ করিয়ে বলেন, প্রসব বেদনা উঠলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আনতে। কিন্তু কিছুক্ষণ তারা একপ্রকার জোর করে হাসপাতালে ভর্তি করে প্রসব বেদনার জন্য ইনজেকশন দেয়। এরপর শুক্রবার আমার স্ত্রীকে ডেলিভারি করানোর জন্য অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যায়। পরে অপারেশন থিয়েটার থেকে আমাকে জানানো হয় বাচ্চার কোনো হার্ডবিট পাওয়া যাচ্ছে না। এরপর তাকে আইসিইউতে নিয়ে যায়। পরে তারা আমাকে জানায় বাচ্চা মারা গেছে।’তিনি বলেন, ‘পরীক্ষাতে কোনো সমস্যা না থাকার পরও তারা কেন আমার স্ত্রীকে ভর্তি করালেন। এরপর আমার নবজাতককে ভুল চিকিৎসায় হত্যা করলেন। আমরা সরকারিভাবে এর তদন্ত দাবি করছি। এর জন্য কঠোর শাস্তি চাই।’
সংবাদ সম্মেলনে প্রসূতির মামা মেজর (অব.) রেজা-উল-করিম বলেন, ‘স্কয়ার হাসপাতালের অদক্ষতা, সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা না দেয়া ও ভুল চিকিৎসাতেই আমার ভাগ্নির নবজাতক মারা গেছে। ডাক্তারদের ইচ্ছামতো কেন আমার ভাগ্নিকে ডেলিভারি করানো হলো। তাহলে কি শুধু টাকার জন্য এই কাজ করেছে? এর সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অভিযুক্ত ডাক্তারকে বিচারের আওতায় আনা হোক। যাতে এটি সারাদেশের ডাক্তারদের জন্য একটি দৃষ্টান্ত হয় এবং ভবিষ্যতে কোনো ডাক্তার এই ধরনের সাহস আর না পায়।’ এ সময় তিনি বিচারের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
এফএইচ/জেডএ/এমএস

About admin

Check Also

‘আমার লাশ পড়লেও আপনাকে মামলা নিয়ে যেতে হবে’

রাস্তায় যানজট সৃষ্টির অভিযোগে প্রধানমন্ত্রীর পিএস পরিচয়দানকারী সচিবের গাড়িতে মামলা দিলেন পুলিশের ইন্সপেক্টর সমমর্যাদার এক কর্মকর্তা। এসময় ওই কর্মকর্তা রাগান্বিত হয়ে সিভিল পোশাকে থাকা পুলিশের এই কর্মকর্তার নাম জানতে চাইলে নিজের ভিজিটিং কার্ড এগিয়ে দিয়ে বলেন, ‘আপনি আমাকে দেশের যেকোনো জায়গায় বদলি করতে পারেন।’ ঘটনাটি গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরের। ঘটনাস্থল রাজধানীর ভিকারুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *