Home | বিডিটুডে | নেশা করে শক্তি জোগান বাসচালকরা

নেশা করে শক্তি জোগান বাসচালকরা

চালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালানোর কারণে সম্প্রতি রাজধানীতে একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটছে। রাস্তায় চলে তাদের অসুস্থ প্রতিযোগিতা। ৯৫ ভাগ চালকই নেশাগ্রস্ত। চালক সংকটের কারণে মাদকাসক্ত জেনেও তাদের হাতেই গাড়ি তুলে দিতে হয়। দিনে ১৮ ঘণ্টার বেশি গাড়ি চালান তারা। ক্লান্তি দূর করতে এবং কাজের শক্তি জোগাতে ইয়াবা সেবনসহ বিভিন্ন নেশা গ্রহণ করেন অনেক চালক। নেশার ঘোরে চালকরা বেপরোয়া বাস চালান। তাতে প্রাণ যায় সাধারণ মানুষের। এ অভিযোগ খোদ পরিবহন নেতাদের।রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে গতকাল বৃহস্পতিবার মালিক-শ্রমিকদের যৌথ সভায় এ অভিযোগ তোলেন পরিবহন নেতারা।

তবে নেশাগ্রস্ত চালকদের সারিয়ে তোলার উদ্যোগ নেবেন মালিকরাÑ এ সিদ্ধান্তও নেওয়া হয় সভায়। সুশৃঙ্খলভাবে গাড়ি চালানো ও দুর্ঘটনা রোধে সিদ্ধান্ত নিতে এ সভার আয়োজন করা হয়। মালিক-শ্রমিকরা সিদ্ধান্ত নেন, ধর্ষণ, নারী নির্যাতনের মতো অপরাধে অভিযুক্ত চালককে নিয়োগ দেবে না পরিবহন কোম্পানিগুলো। লাইসেন্স আসল কিনা, তা পরীক্ষা করে চালক নিয়োগ দেবেন মালিকরা। একের পর এক দুর্ঘটনায় পরিবহন মালিকরাও বিলচিত বলে মন্তব্য করেন গতকালের সভায়।সভায় বক্তৃতা করেন ঢাকা সড়ক পরিবহন সমিতির সভাপতি আবুল কালাম, ঢাকা জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি নুরুল আমিন নুরু, মহাখালী মালিক সমিতির সভাপতি শহীদুল্লাহ সদু, সায়েদাবাদ সমিতির সভাপতি করম আলী প্রমুখ। সভাপতির বক্তৃতায় সড়ক পরিবহন সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, দুর্ঘটনায় চালক-মালিকদের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হচ্ছে। পরিবহন খাতের দুর্নাম হচ্ছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে মালিক-চালকদের নিয়ম মেনে চলতে হবে। চালকরা পথে যা খুশি করছে। মালিকরা জানেও না চালকরা রাস্তায় কী করছে। চালকদের কোনো জবাবদিহিতা নেই।

কাকে চালক নিয়োগ দিচ্ছেন, তা মালিকরাও জানেন না। নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের অভিযোগ রয়েছে, এমন কাউকে চালক শ্রমিক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া যাবে না। বাসে নারীদের আসন সংরক্ষণ করতে হবে। মেয়ের শরীরে হাত দিয়ে তাদের বাসে ওঠানো যাবে না।খন্দকার এনায়েত বলেন, বেশিরভাগ চালক নেশা করে। সাংবাদিকরা এখানে আছে। তারা এ দেশেরই মানুষ। তাদের কাছে লুকানোর কী আছে। চালকরা নেশা করে বেপরোয়া গাড়ি চালায়। তাদের নেশার পথ থেকে ফেরাতে হবে। তার পরও নেশা করলে তাদের গাড়ির চাবি দেওয়া যাবে না।যাত্রী পেতে রাজধানীতে বাসগুলো ব্যস্ত সড়কে প্রতিযোগিতা করে। এতেও দুর্ঘটনা ঘটে। মালিক-শ্রমিকরাই এ তথ্য তুলে ধরেন। বিদ্যমান ব্যবস্থার কারণে এ অসুস্থ প্রতিযোগিতা তৈরি হয়েছে বলে পরিবহন নেতারা দাবি করেন।খন্দকার এনায়েত বলেন, ‘বাস নেট’ চালু হলে এ অবস্থা দূর হবে।

তবে তিনি দাবি করেন, বাস নেট চালু করতে সরকার ঢাকা যানবাহন কর্তৃপক্ষকে দায়িত্ব দিলেও প্রকল্পটি এগোচ্ছে না।সভায় সিদ্ধান্ত হয়, মালিকদের দুই মাস অন্তর চালকদের সঙ্গে বৈঠক করতে হবে। ভুয়া লাইসেন্স ও ফিটনেসবিহীন গাড়ি চালালে ঘটনাস্থলে জেল জরিমানা করা হবে। এ ক্ষেত্রে সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে (বিআরটিএ) সহায়তা করবে মাকিল পক্ষ।গত ৩ এপ্রিল রাজধানীর কাওরানবাজারে দুই বাসের রেষারেষিতে হাত হারিয়েছেন কলেজ ছাত্র রাজীব হোসেন। তিনি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছেন। নিউমার্কেটে দুই বাসের চাপায় মেরুদ- ভেঙে হাসপাতালে শয্যাশায়ী আয়েশা আক্তার নামে এক তরুণী। গত বুধবার ফার্মগেটে ফুটপাথে বাসের অপেক্ষায় থাকা রুনি বেগমের পা থেঁতলে দিয়েছে বেপরোয়া বাস।আস

Check Also

গতকালের ঢাকা একটু অন্যরকম ছিল। রাস্তাঘাট সব বন্ধ। মানুষরা তাদের গন্তব্যে যাচ্ছেন হেঁটে। চৈত্রের দুপুরে …

About admin

Check Also

দেশের মানুষকে ছাগল ভাববেন না: ড. কামাল

সরকার দেশবাসীকে বোকা বানাতে চাইলে অভিযোগ করে গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘বাংলাদেশ বোকাদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *